বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আর্তের মানবতার সেবায় কোটালিপাড়ার পাদুকা প্রতিষ্ঠান ফ্যাশন ফিট সু স্টোর

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

ভিন্ন এক উদাহরণ সৃষ্টি করেছে গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার একমাত্র বে ইম্পেরিয়াল এর আউটলেট পাদুকা প্রতিষ্ঠান ফ্যাশন ফিট সু স্টোরে’র পরিচালক উজ্জল দাস।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার ঘাঘর বাজারে বে ইম্পেরিয়াল এর অফিসিয়াল শো-রুম ফ্যাশন ফিট সু স্টোর উদ্বোধন হয়।

সেই থেকে কাজ করে যাচ্ছে, মানবতার সেবায় নিয়োজিত করে বার বার প্রমানিত করছে ইচ্ছে থাকলে সব কিছু করা সম্ভব। সেই প্রমানটা করেছে ফ্যাশন ফিট সু স্টোরে’র পরিচালক উজ্জল দাস।
এক নজরে ফ্যাশন ফিট সু স্টোরঃ ৬ জুন ২০২০- করোনার কারনে কর্মহীন পাঁচ শতাধিক মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরন। এ সম্পর্কে
ফ্যাশন ফিট সু ষ্টোরের পরিচালক উজ্জল দাস বলেন, আমার ব্যবসার লাভের একটি অংশ দিয়ে কর্মহীন হয়ে পড়া শতাধিক মানুষদের মাঝে চাল, ডাল, তেল, লবণ, চিনি, পেঁয়াজ, আলুসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলাম। আমি আগামীতেও আমার ব্যবসার লাভের একটি অংশ মানবতার সেবায় ব্যয় করবো।

১১ জুন ২০২০- চলমান মাসে প্রায় পাঁচ শতাধিক করোনাযোদ্ধাদের জন্য ১৫ শতাংশ ছাড় দিয়েছে। করোনা ভাইরাস প্রদুর্ভাব মোকাবেলায় দেশের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, হাসপাতাল বা ডায়াগনস্টিক চেম্বারের অন্যান্য কর্মী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, ব্যাংক কর্মকর্তা, সাংবাদিক সহ যে সকল পেশার মানুষ করোনা যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন তাদের প্রতি সম্মান দেখাতে তার এই উদ্যোগ।

এ ব্যাপারে ফ্যাশন ফিট সু স্টোরে’র পরিচালক উজ্জ্বল বলেন, ‘করোনা ভাইরাস যুদ্ধে অনেক পেশার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং অদম্য সাহসীকতার কারণে আমরা নিরাপদে আছি। অসুস্থ হলেও সুস্থতার প্রত্যাশা করতে পারছি। এসকল ফ্রন্টলাইনের যোদ্ধাদের আমাদের অন্তর থেকে শ্রদ্ধা এবং ধন্যবাদ জানাই।’

চলোমান করোনা মহামারীতে এই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন সময় মানুষের মাঝে বিভিন্ন প্রকল্পে অনেক ভাবে গরীব ও কর্মহীন মানুষকে আর্থিক সহোযোগিতা করে যাচ্ছে।
ফ্যাশন ফিট সু স্টোর পবিত্র-ঈদ-উল আজাহা উপলক্ষে দশ দিন ব্যাপী কাস্টমারদের জন্য ঈদ উপহার হিসেবে (Care Box Gift) দিচ্ছে। এ ব্যাপারে আমাদের প্রতিনিধি জানতে চাইলে ফ্যাশন ফিট সু স্টোরে’র পরিচালক উজ্জল দাস বলেন। বর্তমানে চলোমান মহামারীতে সবাইকে সচেতন হতে হবে। এই জন্য দরকার বারে বারে হাত ধোঁয়া ও মাস্ক ব্যাবহার করা। ভির এড়িয়ে চলা। দরকার ছারা বাড়ির বাহিরে না যাওয়া। তাহলেই সম্ভব করোনা মোকাবেলা। উজ্জল দাস আরো বলেন সবার পক্ষে সমপরিমাণ স্যানেটাইজার ও মাস্ক ক্রয় করা সম্ভব না। তাই উজ্জল দাস তার লাভের একটি অংশ দিয়ে সে কিছু কিছু স্যানেটাইজার ও মাস্ক ঈদের উপহার হিসেবে প্রদান করবে।

শর্তসমূহঃ ২৪ই জুলাই থেকে ৩রা আগষ্ট পর্যন্ত এ অফার প্রযোজ্য।
দুর্যোগ দুর্বিপাকে ফ্যাশন ফিট সু স্টোর সর্বদা মানুষের পাশে থাকতে চায়। এ দুঃসময়ে মানুষের পাশে থাকতে পেরে অত্যন্ত গর্বিত বলে জানিয়েছেন ফ্যাশন ফিট সু স্টোরে’র পরিচালক উজ্জ্বল দাস।

এই বিভাগের আরো খবর