রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাতীয় নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

জাতীয় নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে সরকার সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) সুইজারল্যান্ডের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড প্রধানমন্ত্রীর সংসদ ভবনস্থ কার্যালয়ে সাক্ষাৎকালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার মো. নজরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচন কমিশন আইন প্রণয়ন করে সার্চ কমিটির মাধ্যমে সরকার নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করেছে। তিনি বলেন, দেশের নির্বাচন তদারকি করতে বিদেশি পর্যবেক্ষকরা আসবেন এবং তারা স্বাধীনভাবে তাদের কাজ করবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন এবং এর ওপর ও এর বাজেটের ওপর সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই।

আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, আগামী নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিলে সরকার গঠন করবে। আওয়ামী লীগ সব সময় জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে এবং গণতন্ত্রের বিকাশে কাজ করে। আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দল যার ভিত্তি তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত রয়েছে। আওয়ামী লীগের জন্ম গণমানুষ থেকে।

বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির জন্ম সেনানিবাস থেকে। এই দুই দলের প্রধান প্রথমে অবৈধভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে রাষ্ট্রপতি হন, পরে তারা তাদের রাজনৈতিক দল গঠন করেন। জনগণের মধ্যে তাদের কোনো ভিত্তি নেই।

শেখ হাসিনা বলেন, গত ১৪ বছরে সরকার দেশের ব্যাপক রূপান্তর ঘটিয়েছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগ ও তার জোটকে দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ভোট দেওয়ার কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। আওয়ামী লীগ সবসময় জনগণের শক্তিতে বিশ্বাস করে এবং গণতন্ত্রের বিকাশে কাজ করে।

রোহিঙ্গা ইস্যু প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ১০ লাখের বেশি মিয়ানমারের নাগরিক বাংলাদেশের জন্য বোঝা। তিনি সব পশ্চিমা দেশকে মিয়ানমারের নাগরিকদের তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনে সমর্থন প্রসারিত করার আহ্বান জানান।

এই বিভাগের আরো খবর